সাটু‌রিয়ায় প্রবাসীর মেয়াদী আমান‌তের টাকা ফেতর দি‌চ্ছে না আম্বালা ফাউন্ডেশন

প্রতি‌দিন বাংলা‌দেশ, সাটু‌রিয়া:
মানিকগঞ্জ জেলার সাটুরিয়ায় এন‌জিও আম্বালা ফাউন্ডেশনের বিরুদ্ধে এক প্রবাসীর এককালীন মেয়াদী আমান‌তের ৫ লাখ টাকা ফেরত না দি‌য়ে আট‌কে রাখার অ‌ভি‌যোগ উ‌ঠে‌ছে।
মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারী) এ ঘটনায় প্রবাসী সাটু‌রিয়া উপ‌জেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর সু‌বিচার চে‌য়ে লি‌খিত অ‌ভি‌যোগ দা‌য়ের ক‌রে‌ছে।
লি‌খিত অ‌ভি‌যোগ সূ‌ত্রে জানা গে‌ছে, ধামরাইয়ের আমতা গ্রা‌মের আ: রাজ্জাকের পুত্র মো: আর‌শেদ আলী সিঙ্গাপুর প্রবাসী। ‌সে গত ২ মে ২০২৩ তা‌রি‌খে আম্বালা ফাউন্ডেশন সাটু‌রিয়া শাখায় ৫ লাখ টাকা এককালীন মেয়াদী আমান‌তে (মা‌সিক) জমা রা‌খে। এরপর সে প্রবাসে চলে যায়। সম্প্রতি দেশে আসার পর তার টাকার প্রয়োজন হলে আম্বালা ফাউন্ডেশনে গিয়ে তার পাঁচ লাখ টাকা উঠানোর জন্য আবেদন করে। কিন্তু আম্বালা ফাউন্ডেশন সাটুরিয়া শাখার ম্যানেজার মো: আরিফুল ইসলাম তাকে নানা তালবাহানা করে ঘুরাতে থাকে। পরবর্তীতে ম্যানেজার আরিফুল প্রবাসীকে জানায় যে, তার স্ত্রী আম্বালা ফাউন্ডেশন থেকে ঋণ নিয়েছে এর জন্য তারা আমানতের টাকা দেওয়া যাবে না। প্রবাসী আম্বালা ফাউন্ডেশন এর ম্যানেজারের কাছে জানতে চায় এই ঋণের জামিনদার সে কিনা এবং এই ঋণ যখন দেওয়া হয়েছে তখন তো সে প্রবাসে ছিল। তাহলে তাকে না জানিয়ে দেওয়া ঋণের জন্য কেন তার টাকা আটকে রাখা হবে। প্রবাসী লিখিত অভিযোগে আরো উল্লেখ করেছে, আম্বালা ফাউন্ডেশনে তার জমাকৃত টাকা উঠাতে না পারায় সে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে এবং তার প্রবাসে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
লি‌খিত অ‌ভি‌যো‌গের ক‌পি

লিখিত অভিযোগে প্রবাসী আরো উল্লেখ করেছে, আম্বালা ফাউন্ডেশন সাটুরিয়া শাখায় তার পাঁচ লাখ টাকা আমানত ছাড়াও তার স্ত্রীরও এককালীন মেয়াদী আমান‌তের ৫ লাখ টাকা জমা রয়েছে। এছাড়াও তাদের আট হাজার টাকার করে ডিপিএস ও প্রায় লক্ষাধিক টাকার মত সঞ্চয় জমা রয়েছে এবং তার স্ত্রী নিয়মিত কিস্তি পরিশোধ করে আসছে তার কোন কিস্তি বাকি পড়েনি। তারপরও আম্বালা ফাউন্ডেশন এর ম্যানেজার তাদের ভোগান্তি করাতে নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে তার টাকা আটকে রেখে তাকে ভোগান্তিতে ফেলেছে।
অ‌ভি‌যোগকারী ভূ‌ক্ত‌ভোগী মো: আর‌শেদ আলী ব‌লেন, ঋণ নি‌য়ে‌ছে আমার স্ত্রী তখন আ‌মি বি‌দে‌শে ছিলাম। সে ঋ‌নের জন‌্য আ‌মি জা‌মিনদার ও স্বাক্ষী কিছুই না। ঋ‌ণের জা‌মিনদার‌দের কাছ থে‌কে ক‌য়েক‌টি স্বাক্ষককৃত টাকার অংক বসা‌নো ছাড়া চেক নেওয়‌া হ‌য়ে‌ছে। আর আমার স্ত্রী ঋ‌ণের নিয়মিত কি‌স্তি প‌রি‌শোধ কর‌ছে তার পরেও আমার প্রয়োজ‌নের সময় বারবার ঘুরার প‌রে ম‌্যা‌নেজার বেআই‌নি ভা‌বে আমার টাকা আট‌কে রে‌খে‌ছে।
সাটু‌রিয়া উপ‌জেলায় কাজ করা ক‌য়েক‌টি বেসরকা‌রি উন্নয়ন সংস্থার (এন‌জিও) একা‌ধিক কর্মকর্তার সা‌থে আলাপ ক‌রে জানা যায়, এককালীন মেয়াদী আমান‌তের টাকা চাওয়া মাত্র ফেরত দেওয়ার নি‌র্দেশনা র‌য়ে‌ছে। ঋ‌নের জা‌মিনদার না হওয়ার প‌রেও প্রবাসীর টাকা আট‌কে রে‌খে আম্বালা ফাউন্ডেশন সাটুরিয়া শাখার ম‌্যা‌নেজার নিয়মনী‌তির ব‌্যাত‌্যয় ঘটা‌চ্ছেন। স্ত্রীর নেওয়া ঋ‌ণের জন‌্য স্বামীর এককালীন মেয়াদী আমান‌তের টাকা আট‌কে রাখা বেআইনী। আর শুধু স্বামী আম‌ান‌তের টাকা নয় যে‌হেতু ঋণ গ্রহীতা নিয়‌মিত কি‌স্তি প‌রি‌শোধ কর‌ছেন তাই ঋণ গ্রহীতা চাই‌লেও তার আমান‌তের টাকা তু‌লে নি‌তে পার‌বেন।
আম্বালা ফাউন্ডেশনের সাটুরিয়া শাখার ম্যানেজার মো: আরিফুল ইসলাম ব‌লেন, প্রবাসীর স্ত্রীর ঋ‌ণের কার‌নে প্রবাসীর এককালীন মেয়াদী আমান‌তের টাকা দেওয়া হ‌চ্ছে না। প্রবাসী জা‌মিনদার অথবা ঋণ নেওয়ার সময় উপ‌স্থিত ছি‌লেন কিনা জা‌ন্তে চাই‌লে ম‌্যা‌নেজার ব‌লেন না সে ঋ‌ণের জা‌মিনদার না ও ঋণ নেওয়ার সময় উপ‌স্থিত ছি‌লেন না। ঋণ গ্রহীতা নিয়‌মিত কি‌স্তি প‌রি‌শোধ কর‌ছে কিনা জান্তে চাই‌লে ম‌্যা‌নেজার ব‌লেন নিয়‌মিত কি‌স্তি প‌রি‌শোধ কর‌ছেন। তাহ‌লে কেন প্রবাসীর টাকা দেওয়া হ‌চ্ছে না উত্ত‌রে ম‌্যা‌নেজার ব‌লেন আমা‌দের নিয়‌মে এরকমই আ‌ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*