মা আমাদের প্রথম শিক্ষক: ইউএনও না‌হিয়ান নু‌রেন

মো: সো‌হেল রানা খান:
দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) না‌হিয়ান নু‌রেন ব‌লে‌ছেন, মায়েরাই আমাদের আসল শক্তি, মমতা ও ত্যাগের মূর্ত প্রতীক। তারা নিঃস্বার্থ ভাবে প্রতিদিন নিজেদের বিলিয়ে দেয়, তাদের সন্তানদের লালন পালন, পথ নির্দেশ এবং উত্থানের জন্য তাদের হৃদয় ঢেলে দেয়।
ইউএনও না‌হিয়ান নু‌রেন আরও ব‌লে‌ছেন, একজন মায়ের ভালবাসার কোন সীমা নেই, এটি এমন একটি শক্তি যা সময় এবং স্থানকে অতিক্রম করে, মা হচ্ছেন আলোর বাতিঘর যা আমাদের জীবনের অন্ধকার পথের আলোর দিশারী হয়ে জীবনকে সঠিক পথের দিকে ধাবিত করে। আমরা এই পৃথিবীতে প্রবেশ করার মুহূর্ত থেকে, আমাদের মায়েরা আমাদের প্রথম শিক্ষক, আমাদের সর্বশ্রেষ্ঠ উকিল এবং আমাদের প্রিয় বন্ধু হয়ে ওঠেন।
দৌলতপুর উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের আয়োজনে বিশ্ব মা দিবসের আ‌লোচনা সভায় প্রধান অ‌তি‌থির বক্ত‌ব্যে দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) না‌হিয়ান নু‌রেন এ সব কথা ব‌লেন।
সারা দেশের ন্যায় মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলায় উৎসব মুখর পরিবেশে সকল মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে বিশ্ব মা দিবস পালিত হয়েছে।
এ উপলক্ষে একটি বর্নাঢ্য র‍্যালি শেষে আলোচনা  সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিয়ান নুরেন ।
এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোঃ জহিরুল ইসলামসহ প্রমুখ।
অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের অফিস সহকারী মোঃ বাবুল আহমেদ।
এ সময় মায়েদের ভূমিকা নিয়ে বক্তব্যে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা নাহিয়ান নুরেন বলেন, তাদের সান্ত্বনাদায়ক আলিঙ্গন আমাদের ভয়কে প্রশমিত করে, তাদের উচ্চারিত শব্দগুলি আমাদের আত্মাকে  বিশুদ্ধ করে তৈরি করে আত্নবিশ্বাস আর হতে শিখায় সেরাদের সেরা। তাদের নির্দেশনা আমাদের চলার পথের পাথেয়। নিজেদের সেরা সংস্করণ হওয়ার পথে প্রধান পরিচালক। মা এটি একটি উষ্ণ শব্দ চায়ন, যে ডাকে সন্তান প্রশান্তির তৃপ্তিতে হয় পূর্ন। কাজেই সেই মায়ের প্রতি ভক্তি শ্রদ্ধা আর ভালবাসা যেন আমরা বুকের মধ্যে লালন ধারন করতে পারি আর কৃতজ্ঞতায় অবনত থাকি সারাজীবন। 
এই বিশেষ দিনে, আসুন আমরা সেই অসাধারণ মা জাতি নারীদের সম্মান  উদ্বযাপন করার জন্য একটু সময় বের করি। আর এই বিশ্ব মা দিবসে প্রতিটি সন্তান কায়মনোবাক্যে প্রার্থনা করি ভালো থাকুন পৃথিবীর প্রতিটি মা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*