নিউইয়র্কে প্রথম এবং একমাত্র নারী সার্জেন্ট বাংলাদেশি ফজিলাতুন নিসা

প্র‌তি‌দিন বাংলা‌দেশ, ডেস্ক:
নিউইয়র্ক পুলিশের প্রথম এবং একমাত্র বাংলাদেশি নারী সার্জেন্ট হলেন ফজিলাতুন নিসা।
বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত প্রায় ১৪ জন নারী ইউনিফর্ম অফিসার হিসেবে কাজ করছে নিউইয়র্ক পুলিশ বিভাগে। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এই নারী সদস্যদের মধ্যে সর্বোচ্চ পদে সার্জেন্ট হি‌সে‌বে দায়িত্ব পালন করছেন কুমিল্লার এই মেয়ে ফজিলাতুন নিসা।
ফজিলাতুন নিসা ১৫ বছর বয়সে বাবাকে হারিয়ে সংসারের হাল ধরেই তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, সংগ্রাম করেই জীবনে জয়ী হতে হবে। তখন তিনি চট্টগ্রাম কলেজের ছাত্রী। এরপর নিজের স্বপ্ন নিয়ে ছুটে চলেছেন।
সেই কষ্টের সময়েই তিনি পান যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার সুযোগ ডিভি (ডাইভারসিটি ভিসা) লটারির কল্যাণে। সময়টা ছিল ২০০৫ সাল। ফজিলাতুন নিসা চলে আসেন যুক্তরাষ্ট্রে। অচেনা শহরে কাজের খোঁজ করেন। প্রথম কাজ জোটে একটি সুপার মার্কেটে। কিন্তু এ কাজে আটকে থাকতে চাননি ফজিলাতুন নিসা। স্বপ্নটা ছিল বড়। সেই স্বপ্ন পূরণের জন্য পড়াশোনাটা চালিয়ে নেওয়া প্রয়োজন। ভর্তি হন স্থানীয় এক কলেজে। কলেজে পড়ার সময়ই জানতে পারেন, অভিবাসী হয়েও নিউইয়র্ক পুলিশ বিভাগে যোগ দেওয়া যায়।
শুরু হলো স্বপ্নের প্রতীক্ষা। ২০১২ সালে সে সুযোগ পেয়ে এ মুহূর্ত দেরি করেননি ফজিলাতুন নিসা। যোগ দেন এনওয়াইপিডিতে। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কশহরে এ ধরনের নতুন পেশায় যোগ দেওয়ার গল্পটা সম্পর্কে তিনি বলেন, আমার সঙ্গে তাসলিমা আখতার নামের আরেক বাংলাদেশি নারী নিউইয়র্কের ইউনিফর্ম পুলিশে যোগ দিয়েছিলেন। এর আগে বাংলাদেশি অভিবাসী কোনো নারী চ্যালেঞ্জিং এ কাজে যোগ দেননি। আমরাই ছিলাম পুলিশে প্রথম বাংলাদেশি নারী।
পুলিশে নিয়োগ পাওয়ার পর দুই বছর প্যাট্রোল অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ফজিলাতুন নিসা। তিন ভাষায় দক্ষতা থাকার সুবাদে বিশেষ সুযোগ পান পুলিশ বিভাগে। ফজিলাতুন নিসাকে যুক্ত করা হয় এনওয়াইপিডির কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স ইউনিটে। ২০১৭ সালে পদোন্নতি পান সার্জেন্ট পদে। সেই থেকে নিউইয়র্ক পুলিশের প্রথম এবং একমাত্র বাংলাদেশি নারী সার্জেন্ট হলেন ফজিলাতুন নিসা। বাংলাদেশের গর্বিত এই নারী যুক্তরাষ্ট্রের মতো জায়গায় নিজের অবস্থান তৈরি করাটাকে একটা চ্যালেঞ্জ মনে করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*